সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

শেখ হাসিনার হাতেই দেশের গণতন্ত্র উদ্ধার হয়েছে: সেলিম

আওয়ামী লীগের তথ্য ও গবেষণা সম্পাদক ড. সেলিম মাহমুদ বলেছেন, শেখ হাসিনার হাতেই দেশের গণতন্ত্র উদ্ধার হয়েছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এ দেশের গণতান্ত্রিক সংগ্রামে নেতৃত্ব দিয়েছেন। সোমবার (১৮ অক্টোবর) দুপুরে চাঁদপুরের কচুয়া উপজেলার পালাখাল রোস্তম আলী ডিগ্রি কলেজ মিলনায়তনে সদর দক্ষিণ ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ ও সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

গণতন্ত্র তার হাতেই উদ্ধার হয়েছে। তিনি স্বৈরাচার এবং সংবিধান বহির্ভূত অপশক্তির বিরুদ্ধে সংগ্রাম করেছেন। ফলে তিনি সংগ্রামী নেতা থেকে বিশ্বনেতা হয়েছেন। আগামী ডিসেম্বর মাসে শেখ হাসিনার নেতৃত্বে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে দেশ পরিচালনার ২০ বছর পূর্ণ হবে। একটি রাষ্ট্র যিনি সৃষ্টি করেন, তিনি ওই জাতি ও ভবিষ্যৎ প্রজন্ম কীভাবে চলবে, তারও একটি পরিকল্পনা করেন। জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশ পরিচালনার জন্য সব কিছুই ঠিক করেছিলেন। তার শাহাদতের পর ১৯৮১ সালে দেশে এসে নেতৃত্বের হাল ধরেছেন তারই সুযোগ্য কন্যা শেখ হাসিনা। তিনি আজ পিতার ভূমিকায় অবতীর্ণ হয়েছেন। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে তিনি এদেশের মানুষের কল্যাণে যা যা দরকার, সব কাজই করছেন, বলেন সেলিম মাহমুদ।

সেলিম মাহমুদ বলেন, ১৯৮১ সালে শেখ হাসিনা বাংলাদেশে ফেরত এসেছেন মানুষের ভাগ্য পরিবর্তনের জন্য। কারণ বঙ্গবন্ধু যে সোনার বাংলার স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা বাস্তবায়ন এবং মানুষের সব মুক্তির জন্য দেশে এসেছিলেন। বাংলাদেশের যা কিছু অর্জন, তার সব কিছুই জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু ও তার কন্যা শেখ হাসিনার হাত ধরেই।

তিনি বলেন, আমাদের গর্ব হচ্ছে, আমরা প্রত্যেকে আওয়ামী লীগের একেকজন সদস্য। কারণ এদেশে অনেক নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল আছে। বিএনপিও একটি নিবন্ধিত রাজনৈতিক দল। কিন্তু আওয়ামী লীগ সে রকম দল নয়। কারণ এ রাষ্ট্রের জন্মই হয়েছে আওয়ামী লীগের হাত ধরে। এ রাষ্ট্রের পিতা জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান। তিনি যে দলের নেতৃত্বে দিয়ে দেশ স্বাধীন করেছেন, সে দল হচ্ছে আওয়ামী লীগ। যে কারণে আওয়ামী লীগের সঙ্গে অন্যান্য দলের একটি মৌলিক পার্থক্য রয়েছে।

মতবিনিময় সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের ধর্ম বিষয়ক উপ-সম্পাদক আব্দুল মোতালেব এবং সঞ্চালনায় ছিলেন ইউনিয়ন আওয়ামী লীগ নেতা মো. আব্দুস সালাম।

আরও বক্তব্য দেন-জেলা আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আইয়ুব আলী পাটওয়ারী, উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক সোহরাব হোসেন সোহাগ পাটওয়ারী, ইউপি চেয়ারম্যান ইসহাক সিকদার, সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. হাবিবুর রহমান, জসিম উদ্দিন লিটন ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাংগঠনিক সম্পাদক জিয়াউর রহমান হাতেমসহ অনেকে।

সংবাদটি শেয়ার করুন

এই বিভাগের আরও সংবাদ

সর্বশেষঃ