সোমবার, ১৫ই জুলাই, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ

সাকিবের নেতৃত্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিরিজ জয় অথবা ড্র চান জয়

সাকিবের নেতৃত্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিরিজ জয় অথবা ড্র চান জয়

স্পোর্টস রিপোর্টার ॥ আবারও ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে বাংলাদেশ অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানের কাঁধে অধিনায়কত্বের গুরু দায়িত্ব গিয়ে পড়েছে। এবারও কী তাহলে ওয়েস্ট ইন্ডিজকে সিরিজে হারিয়ে দেবে বাংলাদেশ? দলের তরুণ ওপেনার মাহমুদুল হাসান জয় এমনটিই চান। সাকিবের নেতৃত্বে ওয়েস্ট ইন্ডিজে সিরিজ জয় অথব ড্র চান।

ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়ার আগে জয় বলেন, ‘সাকিব ভাই যেখানে আছে, সেখানে কীভাবে কী! সাকিব ভাই বাংলাদেশকে অনেক দিন নেতৃত্ব দিয়েছেন, অভিজ্ঞ ক্রিকেটার, বর্তমানে আমাদের দলের যে পজিশন, তাতে আমি মনে করি সাকিব ভাই সেরা। সবারই প্রত্যাশা থাকে আমাদের ওপর যেন আমরা ভালো করি। আমাদের চেষ্টা থাকবে সিরিজ ড্র করার বা জেতার।’

এক যুগ আগে, ২০০৯ সালে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে অলরাউন্ডার সাকিবের সামনে প্রথমবারের মতো জাতীয় ক্রিকেট দলকে নেতৃত্ব দেওয়ার সুযোগ আসে । সেই সফরের অধিনায়ক মাশরাফি বিন মর্তুজা ইনজুরিতে পড়তেই সুযোগ মিলে। সেই সুযোগ ভালোভাবেই কাজে লাগান সাকিব। প্রথমবারের মতো ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে টেস্ট জিতে বাংলাদেশ। সিরিজ জিতে। প্রথমবারের মতো সাকিবের নেতৃত্বেই বিদেশের মাটিতে টেস্ট জেতার স্বাদ পায় বাংলাদেশ। ওয়ানডে সিরিজও জয় হয়।

এবার যখন আবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ, তখন সাকিবের কাঁধে অধিনায়কত্ব। এবার ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরের জন্য দল ঘোষনার পর সাকিবকে অধিনায়ক করা হয়। ব্যাটিং ভালো হচ্ছে না। চাপ বেশি। তাই মুমিনুল হক টেস্ট নেতৃত্ব ছেড়ে দেন। তাতে করে সাকিব টেস্ট নেতৃত্ব পেয়ে যান।  এবারও কী তাহলে ওয়েস্ট ইন্ডিজে টেস্ট সিরিজ জয় মিলবে?

চারভাগে ওয়েস্ট ইন্ডিজ সফরে যাচ্ছে বাংলাদেশ ক্রিকেটাররা। দুই টেস্ট, তিন ওয়ানডে ও তিন টি২০ ম্যাচের সিরিজ অনুষ্ঠিত হবে। প্রথমভাগে সদ্য টেস্ট নেতৃত্ব ছাড়া মুমিনুলের সাথে নাজমুল হোসেন শান্ত, এবাদত হোসেন, খালেদ আহমেদ, রেজাউর রহমান রাজা ও মাহমুদুল হাসান জয় শুক্রবার রাতে ওয়েস্ট ইন্ডিজের উদ্দেশ্যে দেশ ছাড়েন। এরপর আরও তিনভাগে ক্রিকেটাররা দেশ ছাড়বেন। আগামীকাল, সোমবার ও বুধবার বাকি ক্রিকেটাররা ওয়েস্ট ইন্ডিজ যাবেন।

ওয়েস্ট ইন্ডিজে ১৬ জুন থেকে ১৬ জুলাই পর্যন্ত সিরিজ অনুষ্ঠিত হবে। প্রথমে টেস্ট সিরিজ, এরপর টি২০ সিরিজ হবে। শেষে ওয়ানডে সিরিজ অনুষ্ঠিত হবে। ১৬ জুন অ্যান্টিগায় প্রথম ও ২৪ জুন সেন্ট লুসিয়ায় দ্বিতীয় ও শেষ টেস্ট হবে। এরপর ২ জুন ডমিনিকায় প্রথম, পরের দিন ৩ জুলাই একই ভেন্যুতে দ্বিতীয় ও গায়ানায় ৭ জুলাই তৃতীয় ও শেষ টি২০ হবে। শেষে গায়ানায় যথাক্রমে ১০, ১৩ ও ১৬ জুলাই ওয়ানডে অনুষ্ঠিত হবে।

 

সংবাদটি শেয়ার করুন

সর্বশেষঃ